পাওলো কোলহোর একটি বেশ জনপ্রিয় বই। সারাবিশ্বে ৬১ টি ভাষায় অনুবাদিত হওয়া এই বইটি পাঠকদের অনুপ্রানিত করার জন্য পরিচিত।
বইটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৮৮ সালে পর্তুগীজ ভাষায়। পরবর্তীতে ৬১টি ভাষায় অনুবাদিত হয়ে বিশ্বব্যপি ৩ কোটিরও বেশী কপি বিক্রি হয়।
বইটির প্রধান চরিত্র সান্তিয়াগো নামক এক রাখাল বালক, যার স্বপ্ন ভ্রমণ করা। সে স্বপ্ন দেখে ইজিপ্ট এর গুপ্তধনের। এক রহস্যময় সম্রাট তাকে তার স্বপ্ন অনুসরণ এর উপদেশ দেয়। সম্রাটের কাছে সান্তিয়াগো তার ভেড়ার পাল বিক্রি করে আরবে যাত্রা করে, স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে।
কিন্তু আরবে পৌঁছানোর পরের দিনেই তার সমস্ত অর্থ চুরি হয় যায়। নিঃস্ব! এখন না আছে তার সামনে এগিয়ে যাওয়ার সামর্থ্য না পেছনে ফিরে যাওয়ার।
সে আরবের এক রত্নের দোকানে কাজ শুরু করে, পুরোনো জীবনে ফিরে যাওয়ার জন্য অর্থ জমা করে।
তবে কি তার এই ভ্রমণ ব্যার্থ? আরবে আসা ব্যার্থ? সান্তিয়াগো কি তার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবে? না পুরনো জীবনো ফিরে যাবে?
জীবনের ব্যর্থ, অনিশ্য়তাময় মুহূর্তে এই বই টি সব চেয়ে বড় বন্ধু হয় নতুন আশা এবং স্বপ্নের জন্ম দেয়। শেখায় জীবন কোনো কিছুই ব্যর্থতা নয়। কোনো পদক্ষপই অর্থহীন নয়। প্রতিটি কদমেই কিছু না কিছু রয়েছে।

 

-সমালোচক
তাহসীন
যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে