সমরেশ মজুমদারের বিখ্যাত উপন্যাস ‘সাতকাহন’।
বেশ বড়সড় একটি উপন্যাস।

দীপাবলি নামের একটি মেয়ের ছেলেবেলার দুরন্তপনার সাথে বেড়ে ওঠা আর তার জীবনে ঘটে যাওয়া হতাশাজনক ঘটনাগুলো, সমাজের স্বাভাবিক নিয়ম থেকে বের হতে গিয়ে অসংখ্য প্রতিকূলতার সম্মুখীন হওয়া আর তা থেকে বের হয়ে আসতে গিয়ে নিজের অতীতকে বারবার সামনে পেয়ে যাওয়া, এসব নিয়েই উপন্যাসটি।

বইটি দুইটি খন্ডে লেখা।
দ্বিতীয় খন্ডটি আমার কিছুটা একঘেয়ে লেগেছে।
দীপাবলির বারংবার জেদ, নিজের একঘেয়ে স্বভাব, মানুষের সামনে অতিরিক্ত সাবলীলতা যা বাস্তবিক ক্ষেত্রে বেশ অস্বাভাবিক। যে কোন মেয়ের সাধারণ চলাফেরা উপন্যাসটির কেন্দ্রীয় চরিত্রটির সাথে মিলবে না কখনোই, এমনটা আমার বিশ্বাস। তবে বইটি থেকে তৎকালীন ভারতবর্ষের একটা স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া সম্ভব।
যেসব পাঠক বাস্তবধর্মী বই পছন্দ করেন, তাদের বইটি বেশ ভালো লাগবে।
আমার ব্যাক্তিগত অভিমত বলতে গেলে, মিশ্র প্রতিক্রিয়া বলতে হয়। প্রথম খন্ডটা যতটা ভালো লেগেছে, দ্বিতীয়টা আমাকে ততটা মুগ্ধ করে নি।

তবে পড়ে দেখুন। সবার দৃষ্টিকোণ তো এক নয়!

 

-সমালোচক
মাহবুব গাদ্দাফী কুহু
যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে