বইঃ বরফ গলা নদী
লেখকঃ জহির রায়হান

মধ্যবিত্ত একটি পরিবারের আনন্দ, বেদনা, ভালোবাসা, পাওয়া, না পাওয়া গুলোকে উপজীব্য করে রচিত হয়েছে জহির রায়হানের লেখা “বরফ গলা নদী ” উপন্যাসটি। এটি একটি সামাজিক উপন্যাস। ১৯৬৯ সালের একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের জীবনযাত্রা কেমন ছিল সেই ব্যাপারে সাম্যক ধারণা পাওয়া যাবে এই উপন্যাসটি থেকে।
নড়বড়ে বাড়ি, মায়ের তালি দেওয়া শতছিন্ন ছেঁড়া শাড়ি, ছোট ভাইবোনদের ছোটখাটো আবদার পূরণ করতে না পারা এক সংগ্রামী জীবন হাসমত আলীর বড় ছেলে মাহমুদের। বি.এ পাশ করার পরও সাব এডিটরের চাকরি করে ৫০ টাকা মাইনে পায় মাহমুদ। চাকরিটা নিয়ে মাহমুদের অনেক স্বপ্ন থাকলেও কিন্তু সেটি সম্পাদকের নিয়মনীতির গন্ডিতে বাঁধা পড়ে যায়।
পরিবারের বড় মেয়ে মরিয়ম। অল্প বয়সে মিথ্যে ভালোবাসায় জড়িয়ে একটি ভূল করে পেলে।যা তাকে পরবর্তী জীবনে সুখ থেকে বঞ্চিত করে। সেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে ছাত্রী পড়িয়ে নিজের পড়াশোনার খরচ চালায়। ছাত্রী পড়ানোর সুবাদে মরিয়ম মনসুরের সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এক সময় তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়।
কিন্তু বিয়েতে মাহমুদের মত ছিলো না। কারণ মাহমুদের রয়েছে বড়লোকদের প্রতি তীব্র ঘৃণা।
মরিয়মের বিয়ের পর ৬ মাস ভালোই কাটছে তাদের। মনসুরের সাথে মনোমালিন্য হওয়ায় একদিন কাপড়চোপড় নিয়ে হাজির হয় বাবার বাড়িতে। সেই রাতে এক চরম বিপর্যয় ঘটে। মৃত্যুপুরীতে রুপ নেয় মাহমুদের বাসাটি।

 

-সমালোচক
রাবেয়া আক্তার রিমা
যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে